করোনা, খেটে খাওয়া মানুষ এবং মওলানা ভাসানী

করোনা, খেটে খাওয়া মানুষ এবং মওলানা ভাসানী

খেটে খাওয়া মানুষ

[ লিখাটি ১ জুন ২০২১ তারিখে লিখা, তাই লিখায় ব্যবহৃত তথ্য-উপাত্ত ১ জুন ২০২১ তারিখের পূর্বের]

নোভেল করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯), বিশ্বজুড়ে এক আতঙ্কের নাম। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম শনাক্ত হয় এই ভাইরাস যা এখন পৃথিবীর সর্বত্র ছড়িয়ে পরেছে। কেড়ে নিয়েছে অসংখ্য মানুষের জীবন। পরাশক্তি থেকে শুরু করে, উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলো রীতিমতো হিমশিম খাচ্ছে করোনা পরিস্থিতি সামাল দিতে। বিশ্বে এ পর্যন্ত সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী করোনায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৭ কোটি ১৭ লাখ, ৫৬ হাজার ৫২৭ জনের মত এবং মৃতের সংখ্যা ৩৫ লাখ ৫৭ হাজার ৪১৩ জনের মত। যা রীতিমত ভয়ানক পরিস্থিতির বার্তা দিচ্ছে।

সাবেক বিশ্ব মোড়ল খোদ মার্কিন মুলুকে করোনা আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা চোখ কপালে ওঠার মত ( শীর্ষে অবস্থান করছে)।সর্বশেষ নির্ভরযোগ্য সূত্র অনুসারে যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৩২ লাখ ৩৮ হাজার ৪২২জন এবং মৃতের সংখ্যা ৫ লাখ ৯৪ হাজার ১৮৮ জন। আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতের করোনা পরিস্থিতিও বেশ নাজুক। এ পর্যন্ত ভারতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ২ কোটি ৮০ লাখ ৪৬ হাজার ৯৫৭ জন এবং মৃতের সংখ্যা ৩ লাখ ২৯ হাজার ১২৭ জন। করোনায় আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা হিসেবে ভারত বিশ্বে দ্বিতীয় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। ফুটবলের জন্য বিখ্যাত ব্রাজিল রয়েছে তৃতীয় অবস্থানে, সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ৬৫ লাখ ১৫ হাজার ১২০ জনের মত এবং মৃতের সংখ্যা প্রায় ৫ লাখ। খেলাধূলা, মহাকাশ গবেষণা ও নিত্য নতুন যুদ্ধাস্ত্র তৈরীতে বিলিয়ন, বিলিয়ন ডলার খরচ করতে থাকা বিশ্ব মোড়লরা ভুলেও ভাবতে পারেনি করোনার মত একটা ভাইরাস মোকাবেলায় তাদের এমন নাকানিচুবানি খেতে হবে। মঙ্গলে প্রাণের অস্তিত্ব খুঁজতে থাকা, আকাশ কুসুম স্বপ্নকে বাস্তবে রূপ দেওয়ার আকাঙ্খায় উড়তে থাকা, চরম আত্নবিশ্বাসী আধুনিক বিজ্ঞান নির্ভর বিশ্বকে যে একটা সামান্য ভাইরাস এভাবে মাটিতে নামাতে পারে তা হয়ত খোদ গবেষকদের কল্পনায়ও ছিল না ।

যাই হোক, করোনার এই ভয়াল থাবা থেকে বাংলাদেশেও বাদ যায় নি । ২০২০ সালের ৮ মার্চ প্রথম করোনায় আক্রান্ত শনাক্তের পর এখন পর্যন্ত বাংলাদেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৭৯ হাজার ৮০ জনের ও বেশি এবং প্রাণ হারিয়েছে প্রায় ১২ হাজার ৫০০ জনের মত মানুষ। করোনা শুধু মানুষের জীবনই কেড়ে নিচ্ছে না প্রতিনিয়ত পাল্টে দিচ্ছে মানুষের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা। এর সবচেয়ে বেশি নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষের জীবনে। কর্মহীন হয়ে পড়ছে অসংখ্য মানুষ। ঘরভাড়া জোগাড় করতে না পেরে গৃহহীন হয়ে পড়ছে সাধারণ কর্মজীবী মানুষগুলো। অনেক দিশেহারা, কর্মহীন মানুষ তাদের স্ত্রী সন্তানদের মুখের খাবার জোগাড় করতে না পেরে, ফেলে রেখে যাচ্ছে। ফলে রাস্তায় অনেক মহিলাদের তাদের সন্তানদের নিয়ে মানুষের কাছে হাত পাততে দেখা যাচ্ছে।

দীর্ঘ সময় ধরে স্কুল, কলেজ, ইউনিভার্সিটিগুলো বন্ধ থাকায় অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তিত। পড়াশোনায় চাপ না থাকায়, অনেক তরুণ তরুণীরা বাজে কাজে জড়িয়ে যাচ্ছে, অনেকে আবার আসক্ত হয়ে পরছে ভিডিও গেম কিংবা টিভি সিরিয়ালের মত মারাত্মক ব্যধিতে। দীর্ঘদিন নিয়োগ পরীক্ষা বন্ধ থাকায় বেকার যুবকরা হতাশ হয়ে পড়ছে, তাদের সামনে অনিশ্চিত ভবিষ্যত। অনেকেই স্ত্রী সন্তানদের মুখে খাবার তুলে দিতে হিমসিম খাচ্ছে। লোন নিয়ে ব্যবসা শুরু করা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা স্বাভাবিকভাবে ব্যবসা করতে না পারায় প্রতিনিয়ত লসের স্বীকার হয়ে দেওলিয়া হয়ে যাচ্ছে।

চরমভাবে হতাশাগ্রস্ত এসব অসহায় খেটে খাওয়া মানুষের পাশে আশার বাণী নিয়ে এখনো পর্যন্ত কোন শীর্ষ পর্যায়ের নেতাকে দেখা যায় নি, না সরকারি না বিরোধী কোন দলের। কারণ নেতারা জানেন ক্ষমতার জন্য এখন আর জনগণের আশীর্বাদের তেমন প্রয়োজন নেই, থাকলেও তা মুখ্য নয়। অথচ আমরা স্বাধীনতাত্তোর ও পরবর্তী কয়েক বছরের ইতিহাস পাঠ করলে দেখতে পাই কিভাবে স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী প্রলয়ঙ্কারী ঘূর্ণিঝড় কিংবা প্রবল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত অসহায় মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেছেন, তাদের দুঃখ দুর্দশার কথা নিজে শুনেছেন এবং তাদের কাছে সাধ্যমত সাহায্য সহযোগিতা ও ত্রাণ সামগ্রী নিজ হাতে পৌঁছে দিয়েছেন। এখন আর সেই মওলানা নেই, মানুষের দুঃখ দুর্দশার কথা শোনার নেতাও নেই। এটা জাতির জন্য ও খেটে খাওয়া মানুষের জন্য চরম হতাশার।

তবে হতাশ হওয়ার সময় এখন নয়। আমাদের মধ্য থেকেই মওলানা ফিরে আসবেন আবার। দিশা দেখাবেন মজলুম মানুষকে। মওলানার আদর্শ ধারণ করে এখন সময় এগিয়ে যাবার।

আ. জ. ম. ম অলিউল্লাহ
সাবেক শিক্ষার্থী, পরিসংখ্যান বিভাগ,
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা।

লিখাটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Date/Time:

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Invention-It