শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করতে গেলে সাক্ষাতে অসম্মতি জেলা প্রশাসকের!

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান করতে গেলে সাক্ষাতে অসম্মতি জেলা প্রশাসকের!

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবীতে
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবীতে রাজশাহীতে বিক্ষোভ মিছিল

অবিলম্বে সারাদেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল ও স্মারকলিপি প্রদান করছে রাজশাহীর সাধারণ শিক্ষার্থীরা। সারাদেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ার দাবিতে ধারাবাহিক আন্দোলনের অংশ হিসেবে আজ ৭ম দিনের মত রাজপথে নামে শিক্ষার্থীরা। আজ (৩০ মে) বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১ টায় নগরীর সাহেববাজার জিরো পয়েন্ট হতে এক প্রতিবাদী মিছিল বের করে শিক্ষার্থীরা। মিছিল করতে গেলে শিক্ষার্থীরা পুলিশি বাধার শিকার হয়। পরে পুলিশি বাধা অতিক্রম করে মিছিলটি জিরো পয়েন্ট থেকে শুরু হয়ে জাদুঘর মোড়, সিএন্ডবি, পুলিশ লাইন অতিক্রম করে জেলা প্রশাসকেট কার্যালয়ে এসে শেষ হয়।
মিছিলে পুলিশের বাঁধা
শিক্ষার্থীদের মিছিলে পুলিশের বাঁধা

শিক্ষার্থীদের মিছিলটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এসে বিক্ষোভ সমাবেশে পরিনত হয়। নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী জান্নাতুল সাবিরার সঞ্চালনায় এবং ইশতিয়াক আহম্মেদের সভাপতিত্বে আজকের বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মামুনুর রশীদ, নর্থ বেঙ্গল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির শিক্ষার্থী আব্দুল্লাহ বিন আফতাব শুভ, রাজশাহী কলেজের শিক্ষার্থী জাকারিয়া, নিউ গভ ডিগ্রি কলেজের শিক্ষার্থী খাদিজা ইসলাম সহ আরও অনেকে।

এসময় শিক্ষার্থীরা দাবি তোলেন, “অবিলম্বে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দাও, দিতে হবে!”

বিক্ষোভ সমাবেশে শিক্ষার্থীরা বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য আমরা ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করছি। তার বক্তব্যে চরম দায়িত্বহীনতা ও শিক্ষা বিধ্বংসী মনোভাব ফুটে উঠেছে। শিক্ষার্থীরা তার এই বক্তব্য প্রত্যাখ্যান করে লাগাতার আন্দোলন চালিয়ে যাবে।

এরপরে দীর্ঘ দুই ঘন্টা অপেক্ষা করার পর শিক্ষার্থীরা জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি প্রদান করতে গেলে জেলা প্রশাসক স্মারকলিপি গ্রহণ করলেও তিনি শিক্ষার্থীদের সাথে সাক্ষাৎ করতে অসম্মতি প্রকাশ করেন। এনিয়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।

শিক্ষার্থীরা জানান, একটি জেলার অভিভাবক হিসেবে জেলা প্রশাসকের যেমন আচরণ হওয়া উচিৎ আমরা তার ছিটেফোঁটাও দেখিনি। আমরা এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি। এবং অবিলম্বে দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলো খুলে দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার আগ পর্যন্ত আমরা আমাদের আন্দোলন অব্যাহত রাখবো।

লিখাটি শেয়ার করুনঃ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Date/Time:

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Design & Developed By Invention-It